ITtrickBD.Com
Source of Technology
guest Search
Home 2
Category
Upload File | Photo | Bangla
[ad] FB Photo Verify Solve
Share With Us
Name:

Write:

Retype numbers from picture:


Ghost Stories
Shared by Aminul
মৃত্যু ও দাফনের ৩২ বছর পরেও ঘুঘু মুন্সীর লাশ পাওয়া গেছে অবিকৃত অবস্থায়। কাফনের কাপড়ও পায় নতুন ও অক্ষত। ঘটনা ঘটে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার মোগলবাসা ইউনিয়নের চর কৃষ্ণপুর গ্রামে। স্থানীয় ইউপি সদস্য তৈয়ব আলী জানান, ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় আলেম-ওলামাদের উপস্থিতিতে লাশ উত্তোলন করে পুনরায় দাফন করা হয়েছে। গত ১৮ জুন সোমবার বিকেলে ধরলা নদীর প্রবল ভাঙনে কবর ভেঙে গেলে ভাঙা কবর থেকে লাশ উদ্ধার করে পুনরায় ওই লাশ কবর দেওয়া হয়। এলাকাবাসী জানায়, এ নিয়ে ঘুঘু মুন্সীর লাশ তিন বার দাফন করা হলো। আট বছর আগে ধরলার ভাঙনের মুখে তাঁর লাশ কবর থেকে কৃষ্ণপুর ঈদগাহ কবর স্থানে দাফন করা হয়েছিল। এরপর আবারও কবরস্থানটি নদী ভাঙনের কবলে পড়লে দ্বিতীয়বারের মতো তাঁর লাশ কবর থেকে বের করে ধরলা নদীর পূর্ব প্রান্তের চর মাধবরাম গ্রামের ইসলামিয়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে পুনরায় দাফন করে গ্রামবাসী।৩২ বছর পর কবর থেকে অক্ষত অবস্থায় লাশ পাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে কুড়িগ্রামসহ আশপাশের এলাকার হাজার হাজার মানুষ লাশটিকে এক নজর দেখার জন্য ছুটে আসে। এ বিষয়ে এলাকার ফজলুল করিম (রহ.) জামিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম মুফতি আবুল হাসান আনছারী বলেন, লাশের শরীর ও মুখ দেখে মনে হয় মানুষটি এই বুঝি ঘুমিয়ে গেল। ঘুঘু মুন্সীর ছেলে হযরত আলী (৬৫) ও আশরাফ আলী (৫০) জানান, ৩২ বছর আগে তাঁর বাবা স্বাভাবিকভাবে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি দীর্ঘ দিন গ্রামের মসজিদে ইমামতি করেছেন।
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
Ey story ta amar ak frnd er kach theke sona...ghotonata akta gram nea...oder gramer bari madaripur...madripur e oder gram jekhane thik tar pasher gram eta...gram tar nam "chagol para" ey puro ghotonatai sei gram er... Nam ta sunte odvut holeo asolei ey name e okhane akta gram ache...gram ta beshi boro na...majharir chea aktu chotoi bola chole...kintu oy puro gram er lokder kromokando khub e odvut...arr sei odvut kormokander jonnoi parotopokkhe onno kono gram er lok sei gram er tri simanai jai naa... Oy gram er lokra ek poichashik kalo shoktir puja kore...jake tara bole "o..ebota"...sei gram er lok ra naki khub dorkar na hole gram er bahireo jai naa...tader puro elekar bhitore prochur o..ebotader mondir ache...onno gram theke jara sei gram e geache tader besirvag e fire ashe ni...arr jara fireche tara keu hoito andho noyto boba hoea fireche...sei gram er lok ra proti omaboshsha tithi te o..ebotar uddeshshe chagol boli dey...lokmukhe sona jai aro agea naki chagol er jagai tara manush boli dito...sei gram e gea jara fire eshche tara onekei ey bishwash nea fireche j o..ebota ache...sondhar por e naki sei gram e o..ebotader dekha jai...tader bibhinno bishoy er upor o..ebota ache...jemon...aguner o..ebota,joler o..ebota,batasher o..ebota ettadi...mojar bepar holo jara jara sei gram theke fire o..ebotar cheharar bornona deache...tader sobar bornonai mile geche...o..ebota dekhte naki sadharon manush er theke onk lomba ebong proshosthe onk boro hoy...tader naki matha theke pa porjonto kalo ghono chule dhaka ebong era naki sonkhai onk...sondhar por e naki era eke eke sobai oy gram er pukur gulo theke uthe ashe...sona jai oy gram er lokder o naki bibhinno dhoroner khomota ache...tara naki ichcha korlei jekono manushke kalo jadu dea mere felte pare...oy gram e akhono kno biddut bebostha nei...pasher grame biddut thakleo oy gram er keu e biddut bebohar kore naa...akbar oy grame amar bondhu der gramer ak sikkhito lok dolbol nea geachilo...shea proman korte cheachilo j oikhane kichui nei...shea geachilo 3 din thakar prostuti nea...ebon 3 din por shea bhalobhabei fire ashea...tar kichu hoy ni...kintu shea eshe sobaike bole j okhane kichu akta ache...shea bole shea jokhoni naki kno karone oy gramer onushthan baa pujar somoy tar tabu theke ber hoye sekhane jete nito tokhoni naki takea odrishsho kichu badha dito...abar shea jokhon akbar ber hote nei sondha bela o..ebota dekhar jonno tokhoni naki tar bibhinno jinish jemon camera,shirt ettadi khuje pai naa...arekdin naki shea ber hochchilo tokhon tar kno team member der ashe pashe dekhte pai ni...othocho aktu porei sobai k jokhon pai...tara tokhon bole onakeo naki tara khuje pachchilo naa...tobe tini oy gram theke fire eshe bolen tini kno o..ebota dekhen ni...kintu protidin tini akta odvut jinish kheal korten...ta holo...sondhar por por e naki oy gram er akash hotath kore sobuj aloy dheke jeto...kintu ta naki kichukkhon er jonno...
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
It was happened with one of my friend's life... জীবনের কোন এক সময় এসে আমি মস্ত বড় ভুল করে পেল্লাম। পারিবারিক কলহের জের ধরে আমি suicide করার চিন্তা করি। যেমন চিন্তা তেমন কাজ । খেয়ে ফেলি সস্তা কিছু কীট নাশক । খাওয়ার কয়েক second পর আমার মনে হল অনেক বড় ভুল করে পেলেছি। চীৎকার শুরু করলাম , বলতে শুরু করলাম আমি বিষ খেয়েছি । বাবা মা কান্নাকাটি শুরু করল । ভেবে নিলাম এই বুজি আমি মারা গেলাম। জ্ঞান হারালাম। যখন জ্ঞান আসে তখন আমি ambulance a । মা পায়ের পাশে বসে কাঁদছে মুখে কাপড় এঁটে । বুযতে পারলাম আমি বেঁচে আছি। বাম দিকে তাকাতে আমি সিউরে উটলাম। অদ্ভুত রকমের চুলহিন, সাদা , খাটো মানুষ আমার বাম পাশে বসে লাল চোখে আমার চোখের দিকে তাকিয়ে আছে।কিছু না বুজে ডান দিকে তাকালাম , যা দেখলাম ambulance এর জানালা দিয়ে একই রকম তিন জন ভেসে ভেসে আমাকে দেখছে। ভাবতে লাগলাম হয়ত কিছু পরে আমি মারা যাব তাই এই সব দেখছি। ভয়ে আমি তখন আল্লাহর নাম স্মরণ করছিলাম। আবার জ্ঞান হারালাম। জেগে দেখি আমার হাত পা বাধা। শরীর দুর্বল।বুজতে পারলাম আমাকে wash করা হয়েছে।হটাত ঠাণ্ডা অনুভব করলাম। চোখ সরাতে দেখেতে পেলাম আমার পায়ের পাশে বসে তাকিয়ে হাসছে আমার ছোট বোন যে কিনা গত বছর মারা গিয়েছিলও cancer a । ভয়ে চিৎকার দেব এমন সময় অদ্ভুত মানুষ গুলো আমার দুই পাশে এসে দাঁড়ালো। এবার তারা সাদা রকমের পোশাকে ডাকা শরীর । জ্ঞান হারালাম আবার। চোখ খুলে দেখি মা পাশে বসে আছে । জড়িয়ে ধরে মা কে বলছিলাম ......মা আমাকে মাপ করে দাও। অনেক বড় ভুল করেছি।
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
Story ta amar ek bondhur.bondhur hoye ami story ta tomader kase share korlam....amar paser flat er meyeti prai amar dike takai.meyeti dekte sundor but ami kotha bolar sahos pai na.ek din or sate amar deka hoyei gelo.ami sorasori take prosno korlam ze tomar kono boy friend ase kina.meyeti bollo na.tarpor se amake ekti chirkut dilo.ghotonata ato taratari ghotlo ze ami kisui bujte parlam na.chirkute lekha silo..i love rehan..amar anondo pabar zaigai khub rag holo.kisuta fake laglo.ami meyetir sate porer dine deka kore bollam tumi ekta fake.meyeti songe songe kemon zeno hoye gelo.chokgulo lal.tarpor hotat see aggan hoye gelo.ami or choke muke pani dilam then or gan firlo.evabe suru holo amader notun kore poth chola.protydin or sate kota bola,maje modde ghure berano ekta routine a dariye gelo.kintu zantam na ze valobasa valo na.ekdin hotat amon ekti jhor neme alo amar jibone....zehetu sob somoy or sate baire dating korchi tai vablam aj room dating kori.ok phon dilam.bt or phon bondho pelam.ami r thakte pere oder flat a gelam.dhorga khule dilo ekti choto meye.ami nijer porichoy ditei amake amake drawing room a boste dilo.drawing room a or kisu pics dekte pelam.kisu khon por ek vodro mohila ase amake jigges korlo.ami kauke khujtici kina,ami r logga na peye or kotha bollam.kintu ekdom unexpected ekta ans alo.ta holo chobir meyeti prai dui bochor age saririk asusthotar karone meyeti mara gese .mrito meyeti holo tar meye.ami khov,dukko,kosto sob kisu ke chariye gelam.tahole ki ami ato boro vul korlam.ami taratari okan theke ber hoye annomaskovabe cholte thaklam.or konno khoj pelam na.rate ghumeyeci,hotat amar ghum venge gelo.za dekte pelam ta asa korh ni.deklam sei meye ti amar pase bose amar mathai bolacce.amar kisu bolar moto sahos paccilam na.er pore rateu same ghotona.ami flat cher dilam but or atta amar pisu charlo. (collected)
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
Ghotonata prai dui bochor ager.ami ekta private university te pharmacy portam.amar ek friend amake ekta student ke poranor offer dilo.ami na korte parlam na.vablam leisure time kaje lagano zabe.sondhai zeye upostit sei student er barite.siri ute 1st floor cross kortei kemon zeno ekta voy laglo.mone hocce k zeno amar piche ache.2nd floor ase sobcheye mojar bisoy holo amar voyta puropuri kete gelo.ami calling bell tiptei ek boyosko mohila dhorga khule amar porichoy jigges korlo.ami porichoy deyar lokko korlam dur theke ekta meye dekche.drawing room a boslam.ek jon jograte dhoroner mohila ase amake pa theke matha porzonto deke bollo tumi poraba.tumi to choto manus.ami faltu prosner uttor na diye pas katiye dilam.kisukhon mohila tar meyeke deke pathiye bollen prity tomar notun sir.ami akash theke porlam.ekta meyeke porate hobe tau abar jibone prothom.white dress pora ekta meye ase amake ekta lomba choura Sa.. lam dilo....ami take tar namta jigges korlam but kisu jigges korlam na. akan theke suru holo jiboner notun addai.soptahe 3 din poratam r upoalar kase doa kortam ze kobe porano charbo karon protydin eki ghotona ghot to amar sathe.ek 1st floor a ase voy paua dui oi meyetar baje behave sojjo kora.o bole raka valo,meyeta vns er student silo.akdin meyeti ektu mon kharap kore silo.ami kivabe zeno bujte parlam.ami or chok deke bole fellam ze tar ki hoyeche.onekta kaktaliyo bepar.aste aste or proty rag kome gelo ebong ekta 4ndship hoye gelo.ami zantam ze 1st floor er siri cross korte hobe abong amake voy pete hobe but tobu ami zetam.bujte parlam ze,shorir o mon kono ek zaigai zete chaile nijer attar astitto thake na.ekdin ok poriye basai zacci ek briddo amake poth aglai diye bollo,ami zeno a barite na asi.karon a barite ekjoner golo kete mere hoyeche.ami kisu bolbo hotat briddo gayeb hoye gelo.saradin vablam,okane zabo na,kintu thik somoye ok porate pouse gelam.or basai keu silo na.hotat poranor somoy bollam ami r asbo na.ai bole ami utbo a somoy amar bam hath dhore bollo,ami zete dibo na.ami or hath duto dhore bollam amader happy ending hobe na...atai silo tar sathe amar shes.erpor or sate amar r deka hoyni.o beche ache ki more geche atau zani na...ami amar ai true story tomader kase ekta rohosso kore dilam.or sate somporko tau silo ekta rohosso.r sei barir tritiyo kono shokty silo rohosso.o chaito na o r ami zeno ekta somporke zorate pari....
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
অনেক দিন আগের কথা । একটা নদীর পাড়ে একটা অনেক বড় আপেল গাছ ছিল । একটা ছোট্ট ছেলে প্রতিদিন গাছটারকাছে যেতো এবং গাছটার কাছাকাছি খেলতে পছন্দ করতো । সে গাছে চরতো , আপেল খেতো । এবং ক্লান্ত হয়ে গেলেগাছের ছায়ায় ঘুমিয়ে পরতো । সে গাছটাকে ভালবাসাতো । আর গাছটা ভালবাসতো ছ...েলেটার সাথে খেলতে । সময় গড়িয়ে চলল . . . . . ছোট্ট ছেলেটাবড় হতে লাগলো , এবং তখন সে আর আগের মতো প্রতিদিন গাছটার চারিদিকে খেলতে যেতো না । একদিন ছেলেটা গাছটার কাছে আসলো । তার মনখুব খারাপ ছিলো । গাছটা ছেলেটাকে বলল "আসো। আমার সাথে খেলো ।" ছেলেটা জবাব দিলো "আমি আর ছোট্ট বাচ্চা না । আমি এখন কোন গাছের সাথে খেলি না । আমার এখন খেলনা দরকার । এবং খেলনাকিনার জন্য দরকার টাকা ।" গাছটা বলল "দুঃখিত । আমার কাছে তো টাকা নেই । কিন্তু তুমি আমার আপেল গুলো নিতে পারো । এগুলো বেচে তুমি টাকা পেয়ে যাব ছেলেটা গাছের কথা শুনে উত্তেজিতো হয়ে উঠলো । সেগাছের সব আপেল পেড়ে নিল। এবং খুশি মনে ফিরেগেলো । ছেলেটা আপেল গুলো পেড়ে নেবার পর আর ফিরে আসলো না । গাছটার মন খারাপ হয়ে গেলো । একদিনছেলেটা আবার গাছটার কাছে ফিরে আসলো উত্তেজিতো ভঙ্গ গাছটা ছেলেটাকে বলল "আসো। আমার সাথে খেলো ।" ছেলেটা বলল"আমার খেলার সময় নেই । আমাকে আমার পরিবারের জন্য কাজ করতে হবে । আমার এখন বসবাসের জন্য একটা ঘর লাগবে । তুমি কি আমাকে সাহায্য করতে পারবে ?" গাছটা জবাব দিলো"দুঃখিত। আমি তো তোমাকে ঘর দিতে পারবো না । কিন্তু তুমি আমার ডালগুলো কেটে ঘর বানাতে পারো ।" ছেলেটা গাছটার সব ডাল কেটেনিলো এবং খুশি মনে চলে গে গাছটা ছেলেটার আনন্দ দেখে অনেক খুশি হল । কিন্তু ছেলেটাআর ফিরে আসলো না । গাছটা আবার একাহয়ে গেলো । একদিন গ্রীষ্মের একটা প্রচন্ড গরমের দিনে ছেলেটা আবার আসলো । গাছটা ছেলেটাকে দেখে খুব খুশি হল । গাছটা ছেলেটাকে বলল"আসো। আমার সাথে খেলো ।" ছেলেটা বলল "আমি খুব দুঃখি । আমি বুড়ো হয়ে যাচ্ছি । আমি এখন একটু সমুদ্রে ঘুড়ে আসতে চাই । তুমি কি আমাকে একটা নৌকাদিতে গাছটা জবাব দিলো "আমার গুড়ি তুমি নৌকা বানাতেকাজে লাগ তুমিঅনেক দূরে ঘুড়তে যেতে পারবে এবং আনন্ পাবে ।"তখন ছেলেটা গাছের গুড়ি কেটে নিলো এবং একটা নৌকা সে সমুদ্র ভ্রমনে চলে গেলো এবং অনেক দিন পর্যন্ত আর ফিরলো না । ছেলেটা অনেক অনেক বছর পরআবার ফিরে আসলো । গাছটাছেলেটাকে দেখে বলল "আমি খুবই দুঃখিত বাবু । তোমাকে দেওয়ার মতো আমার আর কিছুই নেই। তোমারজন্য কোন আপেল নেই।" ছেলেটা বলল "আপেল খাওয়ারমতো দাত আমার নেই ।" গাছটা বলল "আমার পিঠে চড়ার জন্য কোন গুড়ি নেই ।" ছেলেটা বলল "আমি অনেক বুড়োহয়ে গেছি । তাই তোমার পিঠে চড়তে পারবো না ।" গাছটা দুঃখ নিয়ে বলল"তোমার জন্য আমার কাছে আর কিছুই নেই । যা আছে , তা হল কিছু মরমরা শিকড় ।" ছেলেটা বলল "আমার এখন বেশি কিছুই চাইনা । শুধুবিশ্রা মের একটা জায়গা পেলেইআমি খুশি ।" গাছটা একটু খুশি হয়ে বলল"পুরোনো গাছের শিকড় বিশ্রামেরজন্য আদর্শ জায়গা । আসো আমার সাথেএসে বসো এবং বিশ্রাম নাও।" ছেলেটাগাছটারপাশ­­ ে এসে বসলো । গাছটা অনেক খুশি হলো এবং অশ্রুমাখা হাসি হা এই গল্পটা সবার জন্যই প্রয়োজন গল্পটা প্রতিকি । এখানে গাছটা দিয়ে আমাদের মা- বাবা কে বুঝানো হয়েছে । আমরা যখন ছোট ছিলাম । আমরা মা- বাবার সাথে খেলতে পছন্দ করতাম । যখন আমরা বড় হয়ে যাই তখনতাদেরকে ছেড়ে চলে যাই । আমাদের প্রয়োজনে অথবা যখন আমরা বিপদে পরলেই শুধু তাদের কাছে ছুটে আসি । মা-বাবা সব সময় আপনার সাথেই থাকবে । এবং আপনাকে খুশি করার সাধ্যমত চেষ্টা করেন । আমাদের অনেকের অবস্থাই অনেকটা গল্পের ছেলেটার মতো । যেখানে ছেলেটা"গাছ" টার সাথে নিষ্ঠুর ব্যাবহার করেছে , গাছটা কে সবসময় একটা বোঝা মনে করেছে । ভুলে যাবেননা , মা- বাবা আপনারজন্য অনেক বড় সম্পন । আল্লাহতালা র সর্বশেষ্ঠ উপহার আপনার জন্য । তাদেরকে বোঝা মনেকরবেন না । আর তাছাড়ামা- বাবা আপনারসাথে সারাজীবন থাকবে না । তাই আসুন আজকে থেকে প্রতিজ্ঞা করি মা- বাবাকে আর কখনো কষ্ট দিবো না ।.
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
Personal Experience Share করছি। আমার বাসা গেন্ডারিয়ায়।আমার বাসার সামনেই একটা বড় আর সুন্দর মসজিদ আছে।এক শবে বরাতের রাতে আমি চিন্তা করলাম সারা রাত মসজিদে থাকবো,নামাজ পরব আর কুরআন হাদীস পরব।সেই ভাবেই গেলাম মসজিদে। রাত প্রায় ২.৩০ পর্যন্ত কিছুই হল না। Everything was normal. রাত ২.৩০ তার কিছুক্ষণ পরেই হঠাৎ করেই বিদ্যুৎ চলে গেল। Emergency Power Supply এ মসজিদের প্রথম সাড়ির কয়েকটা Light জ্বলে উঠল। কিন্তু আমি যে জায়গায় ছিলাম সেই জায়গাটা ছিল অনেক পেছনে জানালার পাশেই তাই সেখানে ওই Light এর আলো না গেলেও বাইরের চাদ এর আলো কিছুটা এসে পরছিল আর সেই আলোতে আমাদের ছায়া দেখা যাচ্ছিল। আমি নামাজে দাড়ানোর পর যখন রুকুতে গেলাম তখন হঠাৎ খেয়াল করলাম যে আমার সামনে যে লোকটা দাঁড়ানো তার পা দুটো উলটা অর্থাৎ পা দুটো যেন আমার দিকে face করা। প্রথমে আমি মনে করলাম যে হয়তো হ্যালুসিনেশন হবে।তাই কিছু মনে না করে নামায চালিয়ে যেতে থাকলাম । যখন প্রথম সিজদা দিয়ে উঠলাম তখন ও same জিনিসটাই দেখলাম আর যারা নামাজ পড়েন তারা জানেন যে নামায এর যে জায়গা থাকে সেটা যদি ছোট হয় তাহলে সিজদা দেবার সময় মাথা সামনের লোকের পা এর সাথে লেগে যায়।আমি যখন দ্বিতীয় সিজদা দেই তখন আমার স্পষ্ট মনে হয় যে আমার মাথা কারো পায়ের আংগুল এর উপর পড়ল।তারপর আবার খেয়াল করলাম যে লোকটার কোন ছায়া দেখা যাচ্ছেনা। তখন আমি মোটামুটি ভয় পেয়ে গেছি। তাই আমি যত তাড়াতাড়ি বের হওয়া যায় তত তাড়াতাড়ি বের হওয়ার চিন্তা করলাম।সেদিন আমার সাথে মসজিদে আমার বাবা বা ভাই ছিল না কিন্তু ১ জন friend ছিল।তাই আমি ওই নামাজ শেষ করে ওকে বললাম যে চল, বাসায় চলে যাই, ভাল লাগছে না। কিন্তু ওকে কিছুই বললাম না। ও আমাকে বলল যে, তুই বাইরে দাড়া, আমি আর দুই রাকাত নামায পরে আসছি।আমি কথামত মসজিদের গেট এর বাইরে দাঁড়িয়ে থাকলাম।তখন দেখলাম যে একজন মোটামুটি লম্বা একজন মানুষ আসছে।আমার height 5’10’’ এর মত আর তিনি ছিলেন আমার চেয়ে প্রায় এক ফুট লম্বা।আর যখন আমি নামাজ পরেছি তখন আমি তার পেছনে ছিলাম বলে তার চেহারা দেখতে পাইনি।এবার দেখলাম যে তার চেহারা খুবই সুন্দর এবং মুখভর্তি দাড়ি। তিনি এসে আমার কাধে হাত দিলেন এবং বললেন যে “বাবা, যা দেখেছ ভুলে যাও।”আমার তখন সাহস হয়নি যে তার পায়ের দিকে তাকিয়ে দেখব আর কেউ কোনভাবে যদি কাধের ওপর হাত দেয় তাহলে তার ওজন অনুভব করা যায়। কিন্তু আমি কাধে কোন রকম ওজন অনুভব করতে পারলাম না।কিন্তু আগে তার পা এর আংগুল অনুভব করেছিলাম। এরপর তিনি আমাকে cross করে চলে গেলেন। আমি তার দিকে তাকিয়ে দেখছিলাম কিন্তু তার পা এর দিকে তাকাই নাই ভয়ের কারণে।তারপর আমি এক মূহুর্তের জন্য মসজিদ এর গেটের দিকে তাকালাম দেখার জন্য যে আমার বন্ধু আসছে কিনা।এক সেকেন্ডের ব্যবধানে আবার রাস্তার দিকে তাকাতেই দেখি তিনি আর নেই।অথচ আমাদের মসজিদ এর সামনের রাস্তা ছিল অনেক বড় যার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত স্পষ্ট দেখা যায়।............... . . . . . ফেইসবুকের নতুন নিয়ম অনুযায়ী কোন পেইজের পোস্টে নিয়মিত লাইক কমেন্ট না করলে সেই পেইজের ভিজবিলটি ফেইসবুক কর্তৃপহ্ম লো করে দেয় যার ফলে সেইসব ফ্যানরা পেইজের পোস্টগুলো তাদের হোমপেইজে আর দেখতে পায় না ॥ তাই আপনাদের কাছে অনুরোধ আমাদের পেইজটি যদি আপনাদের কাছে যদি এতটুকু ভাল লেগে থাকে তাহলে নিয়মিত লাইক করুন॥ গল্প ভাল লাগলে লাইক দিন আরভাল না লাগলে ভদ্র ভাষায় কমেন্ট করুন ॥
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
আপনি বাথরুমে গেলেন, হাত মুখ ধুলেন, তারপর নিশ্চয়ই বেসিনের আয়নাটার দিকে তাকাবেন। কেমন হবে যদি দেখা যায় আয়নায় যেই মুখটি দেখা যাচ্ছে তা আপনার না, অন্য কারো? ধরেন বীভৎস একটা মুখ, যা আপনি আগে কখনো দেখেন নি! আয়না নিয়ে অনেক রহস্যময় ঘটনা আছে। একবার একছেলে মুখ ধুতে ওয়াসরুমে গেলো। যখন হাত মুখ ধোঁওয়া শেষে সে আয়নার দিকে তাকাল তখন দেখতে পেলো তারমুখের একপাশ ঠিক আছে, কিন্তু অপর পাশটা কঙ্কাল হয়ে গেছে। সে ভাবল চোখের ভুল, তাই সে আবারো মুখ ধুয়ে আয়নার দিকে তাকাল এবং এইবার সে অন্য জিনিস দেখল। দেখল, এক মহিলা আয়নার ভেতর থেকে অপলক দৃষ্টিতে তার দিকে তাকিয়ে আছে। মহিলার চোখের মণি নেই। চুল কপালের দুই পাশ দিয়ে ঝুলে রয়েছে। মুখে বসন্তের দাগ। ছেলেটা ভয় পেলো, এবং আবার মুখ ধুলো, এরপর আয়নার দিকে তাকাল। এবার ছেলেটা কাউকেই দেখতে পেলো না। এমনকি নিজেকেও না। শুধু তার পিছনের সাদা দেয়ালটা দেখা যাচ্ছে। ছেলেটা সেন্সলেস হয়ে পড়ে .হয়ে পড়ে যায়। হাজার হাজার বছর ধরেই আয়না নিয়ে মানুষ অনেক ভীতিকর ঘটনা ফেস করে আসছে। নানান গল্পও শোনা যায় এই নিয়ে। অনেকে বিশ্বাস করেন যে, আয়না মৃত মানুষের আত্মাকে ধরে রাখে। কেউ যদি মারা যায় এবং সেই ঘরে যদি কোনও আয়না থাকে তবে সেই আয়না সেই লাশের আত্মাটাকে ধরে রাখে। তাই অনেক জায়গায় কেউ মারা গেলে সাথে সাথে সেই রুমে কোনও আয়না থাকলে তা সরিয়ে ফেলা হয় বাইবেলে বলা আছে, আয়না শয়তান তৈরি করেছে, যাতে আয়নার মধ্যে আত্মা ঢুকে গিয়ে আর স্রস্টার কাছে ফিরে যেতে না পারে। আয়না তে কি আসলেই আত্মা ঢুকতে পারে? একটা লজিক আছে এই ব্যাপারে। ক্যামেরার ফিল্ম তৈরিতে হেলাইড নামের জিনিস ব্যাবহার করা হয়, যার ফলে ক্যামেরা যেকোনো ছবি ধরে আয়না তৈরি সিলভার হেলাইড ব্যাবহার করা হয়। এখন তা যদি কোনও মানুষের ছবি ধরে রাখতে পারে তবে এটা ক না যে সেই আয়নায় এমন কারো ছবি দেখা যেতেই পারে যে হয়তো এখন বেঁচে নেই, কিন্তু কোনও একসময় সেই আয়নায় মুখ দেখেছে? বলা যায় না? যেতেই পারে! আমেরিকাতে একটা কথা শোনা যেত সালের দিকে। কোনও অন্ধকার রুমে যদি একটা মোমবাতি জ্বালিয় সামনে দাঁড়িয়ে কেউ “ব্লাডি মেরী” বললে নাকি আয়নাতে একটা অল্প বয়সী মেয়েকে দেখা যেতো! তাকে ইভিল স্পিরিট বা শয়তানের আত্মা বলা হয়। কেউ কেউ নাকি সেই ব্লাডি মেরী দ্বারা খতির সম্মুখীনও হয়েছে। আমেরিকার আরেকটা জায়গায় “কারদিনি গ্রিন” নামের একজনের কথা শোনা যায়। এই লোকের নামও নাকি আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে পাছবার নিলে তাকে দেখা যায়। তার এক হাত কাঁটা। সেই হাতে নাকি একটা স্টিলের স্পাইক লাগানো! এক স্টুডেন্ট একবার আসাইন্মেন্ট করার কাজে ঐ জায়গাতাই গিয়েছিলো যেখানে সেই গ্রিন নামক ব্যাক্তির কথা প্রচলিত ছিল। সেই এলাকার সবাই গ্রিন নামক ব্যাক্তির আত্মা নিয়ে এতো বেশি আতঙ্কে ছি যে তারা কেউ ঐ স্টুডেন্টকে কোনও তথ্য দিতে পারছিল না ভয়ে। স্টুডেন্টটা পরে নিজে একা সেই এলাকায় গিয়ে ঐ কারদিনি গ্রিন নামক ব্যাক্তির ব্যাপারে পরীক্ষা করার সিদ্ধান্ত নিলো। পরের দিন ঐ স্টুডেন্টের লাশ উদ্ধার করা হয়। তার সাথে কি ঘটেছিলো তা কেউ জানে না। বলা হয়ে থাকে যে, কারো ঘরে যদি পুরনো আমলের বিশাল বড় কোনও আয়না থেকে থাকে তবে সেসব আয়নাতে কিছু না কিছু থাকে। আত্মা যখন একটা রুমে ঢুকে আয়নাকে সে তার বের হবার পথ ভেবে ভুল করে। তখন সে আয়নার ভেতর ঢুকে ঠিকই কিন্তু বের হতে পারে না। তাকেই হয়তো লোকেরা দেখে। একবার ভাবুন তো, আজকে একটু পর হয়তো আপনি বাথরুমে যাবেন, ওখানে বা তার আসে পাশে নিশ্চয়ই একটা আয়না আছে। তাকিয়ে দেখুন তো! আয়নার ভেতরের মানুষটাকি আপনি? নাকি অন্য কেউ! →একটু লক্ষ করুণঃ এই তথ্য গুলো নেট থেকে অনেক কষ্ট করে খুজে বের করে আপনাদের সাথে শেয়ার করি!আমাদের কষ্ট তখনই সার্থক মনে হয়,
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
এ গল্পটা আমার খালার সাথে ঘটেছে । আমার খালা আগে নারায়ণগঞ্জ এ থাকত । সেখানে চাষারায় একটি পুরান জমিদার বাড়ি ছিল যা আমার খালুর । সে বাড়িটা খুব পুরান । বলতে গেলে প্রায় ভাঙ্গা অবস্থা । সকালে সেখানে গেলেই সবাই ভয় পায় । রাত্রে তো আরও করুন । সে বাড়িতে খালারা একটি পরিবা । সেখানে অনেক ভুতুরে কাণ্ড ঘটেছে । আমার খালুর বাড়িতে যারা থাকত তারা প্রতি রাত্রে তাদের শোয়ার ঘরে একটি ছায়া ঘুরতে দেখত । আর কে জানি তাদের খাট প্রতিদিন কাঁপাত । আর সবচেয়ে বড় ঘটনা হল প্রতি মাসে একবার খালুর বাড়িতে রাত্রে কারা যানি ঢিল মারত । আমারখালাত ভাই সে সময় ছাদে গিয়ে চেক করত । কিন্ত কাউকে দেখা যেত না । পাথর গুলা খুব সাদা ও দেখতে খুবসুন্দর ছিল । খালারা সে সময় কোরানশরিফ পড়ত । সবচেয়ে আশ্চর্য ঘটনা হল পাথর গুলো কারও গায়ে লাগতনা । ঢিলাঢিলি রাত্র দুটা পর্যন্ত চলত । এখন আপনারাই বলুন কোনও মানুষ কি এমন করতে পারে । ঘটনাটা একেবারে সত্যি ।
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
রাজশাহী জেলায় একটা আনসার ক্যাম্প আছে , যার পাশে একটা ঘন জঙ্গল অবস্থিত । লোকে বলে , ঐ জঙ্গলে নাকি একপাল শূকর ঘুরে বেড়ায় এবং কেউ যদি ঐ শূকরের পালের কোন একটাকে দেখে ফেলে , তবে ঐ লোক নাকি মারা যায় ! যা হোক , এই গুজবের কারণে পারতপক্ষে কেউ জঙ্গলের কাছে যেতে চাইতো না । আর রাতের বেলা তো নয়ই , কারণ রাতের বেলা শূকরের পাল খাবার খুঁজতে বের হয় । ক্যাম্পে একজন নতুন সদস্য এসেছিলো , যে ছিল খুব জেদী আর একরোখা । সে ঐ গুজবটা শুনে সিদ্ধান্ত নিলো , ও রাতের বেলা ঐ জঙ্গলে যাবে আর গুজবটাকে ভূয়া প্রমানিত করে সকালে ফিরে আসবে । সবার নিষেধ উপেক্ষা করে এক রাতে ঐ সদস্য জঙ্গলের ভিতর ঢুকলো । প্রচন্ড আত্নবিশ্বাস আর সাহসের সাথে জঙ্গলের গভীর থেকে আরো গভীরে যেতে থাকলো । হঠাত্ খসখস করে বুনো ঝোপের ভিতর শব্দ হলো ! সদস্য তার হাতের টর্চ দিয়ে ঝোপে আলো ফেললো । তাকে চমকে দিয়ে একটা মাঝারি সাইজের শূকর চোখের সামনে দিয়ে দৌড়ে পালালো । ব্যাপারটাতে ভয়ের কিছুই নেই । কিন্তু তখনি ঐ সদস্যের আত্নবিশ্বাস চুরমার হয়ে গেলো । তার সাহসের স্থানে চেপে বসলো ভয় ! পিছনে আবার খসখস শব্দ ! সদস্য আর দাড়িয়ে থাকতে পারলোনা ! সমস্ত শক্তি দিয়ে দৌড় লাগালো । ক্যাম্পের নিশানা ভূলে গেলো । তার পিছনে তাড়া করতে লাগলো ঐ খসখস শব্দ ! সদস্য দৌড়াতে দৌড়াতে একটা ছোট লেকের ধারে এসে পৌছালো । কিনারায় একটা নৌকা বাঁধা ছিলো । সদস্যের মনে হলো , এই নৌকাটাই তাকে বাঁচাতে পারবে । সে নৌকায় উঠে বসলো । নৌকা নিয়ে লেকের মাঝামাঝি চলে এলো । সে ঠিক করলো , ভোর না হওয়া পর্যন্ত একচুলও এখান থেকে নড়বেনা । কিছু সময় কেটে গেলো । হঠাত্ জঙ্গলে আবার খসখস শব্দ ! সদস্য ভীত চোখে তাকিয়ে থাকলো শব্দ যেখান থেকে আসছে , সেখানে । জঙ্গলের ভিতর থেকে সাদা ফ্রক পড়া একটা ১১/১২ বছরের মেয়ে বের হয়ে এলো ! মেয়েটার মুখে একটা নিষ্ঠুর হাসি ছিলো ! চোখে ছিলো অপলক মায়া ! সদস্যটা ধুমপান করতো । তার পকেটে ছিলো একটা পুরো সিগারেটের প্যাকেট আর ম্যাচ । সে শুনেছিলো যে , আগুন থাকলে নাকি এসব জিনিস কোন ক্ষতি করতে পারেনা , কাছেও আসতে পারেনা । তাই সে সিগারেট ধরালো । হঠাত্ মেয়েটা রক্তহিম করা একটা অট্টহাসি দিয়ে বললো , " কতক্ষণ সিগারেট খাবি ? আগুন তো নিভে যাবে । আলো তো একসময় শেষ হবে । তখন আর বাঁচবি না ! " সদস্য থরথর করে কাঁপতে লাগলো । চেইন স্মোকারের মত একটা সিগারেট শেষ না হতেই আরেকটা ধরাতে লাগলো । তার উদ্দেশ্য ছিলো , কিছুতেই যাতে আগুন না নিভে । কিন্তু এভাবে আর কতক্ষণ ? সিগারেট শেষ হয়ে গেলো ! এখন উপায় ? ম্যাচে অনেক কাঠি ছিলো । সদস্য ঐগুলোই একটার পর একটা জ্বালাতে লাগলো । মেয়েটা লেকের তীরে ঠাঁয় দাড়িয়ে ছিলো । একজনের বাঁচার অপেক্ষা । আরেকজনের মারার ! পূব আকাশ ফর্সা হয়ে দিগন্তে আলো ছড়াতে লাগলো । বাতাসে ভেসে এলো " আল্লাহ আকবার আল্লাহু আকবার " ধ্বনি তে ফজরের আযান । লেকের পানি ভোরের তাজা স্নিগ্ধ বাতাসে ঢেউ খেলাতে লাগলো । জঙ্গলে একটা থমথমে ভাব বিরাজমান ! জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দাড়িয়ে একজন মানুষ । আরেকজন অশরীরী !! মেয়েটা চলে যেতে প্রস্তুত হলো । জঙ্গলের দিকে ধীরে ধীরে এগুতে লাগলো । হঠাত্ থমকে দাড়ালো ! ধীরে ধীরে মুখটা লেকের দিকে ফেরালো । ঠোঁটে নিষ্ঠুর হাসি ফুটিয়ে বললো , " এইবারের মত বেঁচে গেলি । পরের বার আর বাঁচবি না ! " সদস্যের চোখের সামনে মেয়েটা অদৃশ্য হয়ে গেলো ! চোখে অপলক মায়া , কিন্তু গভীর এক দুঃখবোধ !0 সদস্য সূর্য না উঠা পর্যন্ত লেকের পানিতে ছিলো । তারপর নৌকা নিয়ে জঙ্গলের দিক দিয়ে না এসে ঘুরপথে তীরে পৌছালো আর অনেক কষ্টে ক্যাম্প চিনতে পারলো । তার আত্নবিশ্বাস আর সাহসের কিছুই আর অবশিষ্ট ছিলোনা । পরে তার আর কোন ক্ষতি হয়নি । সে প্রাণে বেঁচে যায় ! ( ঘটনাটি সত্য । আপনাদের ভালো লাগানোর জন্য এতে গল্পের কিছুটা আমেজ দেয়া হয়েছে।)
Copy:

1325 days ago



Shared by Aminul
দীপক হাসান আমি দীপক। আগে ঢাকায় থাকতাম।বর্তমানে সিলেটে একটি ব্যাংকে কর্মরত আছি। আজকে আপনাদের সাথে যেই ঘটনা শেয়ারকরবো তা আমার নিজের চোখে দেখা। আমি তখন ক্লাস ৪ এ পড়ি। থাকতাম তেজগাঁও রেলওয়ে কলোনিতে। স্কুল থেকে বাসায় এসেই খেলাধুলা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়তাম। যেদিনের ঘটনা সেদিন বিকেলেও স্কুল থেকে এসে খেলতে গেলাম। আমাদের বাসার ঠিক সামনের বাসায় রাকিব নামে একটি ছেলে থাকতো। আমার সমবয়সী। দারুন খ্যাপাটে মেজাজের এবং ডানপিটে। আমরা সবাই তাকে একটু ভয় করতাম। যাই হোক, সেদিন আমরা ক্রিকেট খেলছিলাম। রাকিবদের বাড়ির সামনে একটা মাঠের মতো জায়গা আছে। বেশি বড় না, কিন্তু আমাদের মতো বাচ্চাদের জন্য যথেষ্ট। তার ঠিক ডান বাম পাশেই একটি বিরাট বড় বেল গাছ। সেই গাছে অনেক বড় বড় বেলধরত। তবে কেন জানি না, কেউ সেই গাছের বেল খেত না। এমনকি আমরা ছোটরাও এড়িয়ে চলতাম গাছটিকে। আম্মু আব্বুরাও নিষেধ করতেন ঐ গাছের আসে পাশে যেতে। যাই হোক, আমাদের মাঝে একটা ছেলে ছিল একটু বড় শরীরের। বড় শরীরের মানে আমাদের সাথে একই ক্লাসে পড়ে কিন্তু দেখতে আমাদের চেয়ে বড়। সে হটাত করে একটি শট করে বল ঐ বেল গাছের দিকে মারল। আমরা সবাই চেয়ে দেখলাম বলটা সোজা গিয়ে বেল গাছের একটু ঘন জায়গায় পড়লো এবং নিচে পড়ার আর কোন আওয়াজ হল না। অর্থাৎ বলটা আটকে গেলো। আমাদের মধ্যে হুলুস্থুল পড়ে গেলো। এবার বল পাড়বে কে? কেউ রাজি হলো না গাছের আশেপাশে যাবার। হটাত রাকিব এগিয়ে এলোএবং বলল সে উঠবে গাছে। আমরা না করলাম সবাই। কিন্তু সে কথা শুনল না এবং এক পর্যায়ে গাছে উঠে বসলো। বেল গাছে সাধারণত একটু উপর থেকে ডাল ছাড়ে (বড় হয়ে তাই দেখেছি), কিন্তু এই গাছে তুলনামূলক নিচ থেকেই ডাল ছিল। রাকিব গাছে উঠে পড়লো দ্রুত। ও একটু লম্বা ছিল আমাদের চেয়ে। বেশিদেরি হল না উপরে উঠে পড়তে। আমরা পায়ে পায়ে এগিয়ে গেলাম সেই গাছের দিকে। বেল গাছটা খুবই ঘন ছিল। এটা না দেখলে কেউ বিশ্বাস করবেন না যে কতোটা ঘন। হটাত উপরে উঠার পর আমরা আর রাকিবকে দেখতে পেলামনা। সে উপর থেকে চিৎকার করে জিজ্ঞেস করতে লাগলো বলটা কতোউপরে পড়েছে। আমরা তাকে দেখতেনা পেয়ে বারবার বলতে লাগলাম মাঝ বরাবর পড়েছে মনে হয়। সে প্রায় ৪-৫ মিনিট খুঁজাখুঁজি করেও বল পেল না। উপর থেকে বললনেমে যাই, বল দেখতে পাচ্ছি না। আমরা বললাম ঠিক আছে। ও নামার সময় হটাত আও করে চেঁচিয়ে উঠলো এবং বলতে লাগলোওরে ব্য আমাকে ছাড়ো, আমাকে ছাড়ো। বাঁচাও বাঁচাও। সে এভাবে চিৎকার করতে করতে খুব দ্রুত গাছ থেকে নেমে এলো। এরপর যা দেখলাম তাতে আমাদের পিলে চমকে গেলো। রাকিবের উরুর পাশে এক খাবলা মাংস নেই। ভাই মিথ্যা বলছি না। কেউ যেন গর্ত করে কেটে নিয়েছে এক মুঠো মাংস। এক নাগাড়ে রক্ত গড়িয়ে গড়িয়ে পড়ছে। রাকিব গাছথেকে নেমে একবার উপরে তাকিয়েবাড়ির দিকে দৌড় মারল। আমাদেরমধ্যে কয়েকজন ভয় পেয়ে নিজেদের বাড়ির দিকে ছুটে গেলো। আমি এবং আরও ২-৩জন রাকিবের পিছন পিছন ওদের বাসায় গেলাম। রাকিব ততখনে দরজা থেকে ঢুকে পড়ছে। তার চিৎকার শুনে আঙ্কেল অ্যান্টি বেড়িয়ে এলো ভিতর থেকে। তার এই অবস্থা দেখে সবাই ভয়ে এবং কষ্টে চিৎকার করে উঠলো। রাকিব ঘরে ঢুকেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে গেলো। দ্রুত আঙ্কেল তাকে নিয়ে ছুটলেন আল রাজি হাসপাতালে। সেখানে নেয়ার পর কিছু করা গেলো না। ২০ মিনিট পর রাকিব মারা যায় হাসপাতালেই। পরিশেষ:রাকিবের মৃত্যুর পর পুরো এলাকার মানুষ জমে যায় তাদের বাড়িতে। অ্যান্টি একনাগাড়ে বিলাপ করে কান্না করছিলেন। আমি জীবনের প্রথম চোখের সামনে মৃত্যু ঘটা দেখলাম। রাকিবকে হাসপাতাল থেকে নিয়ে আসা হয় বাসায়। লাশটা যখন গোছল করানো হয় তখন সবাই বলছিল তার শরীর নাকি খুব দ্রুত ঠাণ্ডা হয়ে যাচ্ছিলো এবং কেমন যেন শক্ত হয়ে যাচ্ছিলো। দ্রুত জানাজা শেষে তাকে আজিমপুরেই কবর দিয়ে দেয়া হয় সব মুরুব্বীদেরপরামর্শে। রাকিবের লাশ জানাজার পর আর দেখানো হয় নি। যদিও নিয়ম থাকে যে জানাজার পর মানুষ লাশ দেখতে পায়। আমার ছেলেবেলা এরচেয়ে ভয়ংকর কাটানোর কথা কখনো চিন্তাও করি নি। প্রিয় একটি বন্ধুকে হারালাম। তাও এমনভাবে যা স্বপ্নেও আসে নি। সেই বেল গাছটা কেটে ফেলা হয়। গাছটি কাটার পর নাকি প্রায় রাতেই আঙ্কেলদের টিনের রাতে কেউ একনাগাড়ে কিছু একটা দিয়ে বাড়ি দিতো। ধাতব কিছু একটা। প্রচণ্ড আওয়াজ হলেও কেউ সাহসকরে বের হতো না। আর ঘুমের মধ্যে আন্টি প্রায়ই দেখতেন একটা বিদঘুটে মানব দেহ তার দিকে এগিয়ে আসছে। আঙ্কেলরা বেশিদিন থাকেন নি সেই বাড়িতে। বাড়িটা ছেড়ে চলে যান কয়েক মাস পর। আমার বাবাও বদলি হয়ে যান। আমরাও চলে যাই নতুন ঠিকানায়। আমি জানি না রাকিবের মৃত্যুর কারণ কি ছিল। ছোট ছিলাম তাই কারো সাথে এ নিয়ে আলোচনা করতে পারি নি। বড় হয়ে এখনো ভাবি সে কথা। এখনো মনে আছে রাকিবকে। আল্লাহ রাকিবকে সব সময় ভালো রাখুক। অনেক ভালো।
Copy:

1325 days ago




Pages: [Prev] [Next] 1 . .1 . . . .1
আজকে সাইটটি ভিজিট হয়েছে 24 বার
Share
Like us
My Site
Terms
Home
Log IN
|
02:52 am
ITtrickBD.Com 2013-14 forum
facebook ফটো ভেরিফায় সমাধান

Download Bollywood full movie for free
Download Android App for Free